আনু মুহাম্মদ।।

এই তরুণদের বোধে এই সহজ সত্যটি এখন খুব পরিষ্কার যে, মহাপ্রাণ সুন্দরবনের যেমন কোনো বিকল্প নেই, তেমনি সুন্দরবন রক্ষার লড়াইয়ে বিজয়ী হবারও কোনো বিকল্প নেই। তাই ৮ ঘন্টা ধরে পুলিশের লাঠি, গুলি, টিয়ার গ্যাস, জলকামানের অবিরাম আক্রমণ মোকাবিলা করে, নিজের শরীরে জখম নিয়ে তারা জায়গা ধরে রেখেছে, বাংলাদেশ ধরে রেখেছে। পুলিশী আক্রমণে শরীর ক্ষতবিক্ষত হয়েছে ঠিকই কিন্তু এই অপ্রতিরোধ্য প্রাণশক্তি বহুগুণ হয়ে আরও অসংখ্য মানুষের মধ্যে বিস্তৃত হয়েছে।

শুধু শাহবাগ নয় ঢাকার হরতালে আরও মিছিলে ও দেশের নানাস্থানে সভা সমাবেশে হামলা-হুমকি-ধ্বস্তাধ্বস্তি হয়েছে। একদিকে ভয় দেখিয়ে ভাড়া করে রামপালপন্থী মানববন্ধন সাজিয়ে তা প্রচার করা হয়েছে, অন্যদিকে খুলনায় সুন্দরবন রক্ষার সমাবেশে পুলিশ হামলা করেছে, বন্দুক তুলে শাসিয়েছে। কিন্তু সবজায়গাতেই শ্লোগান আরও জোরদার হয়েছে ‘রামপাল চুক্তি ছুঁড়ে ফেল, বাংলাদেশ রক্ষা কর’।

আগামীকাল ২৮ জানুয়ারি, সুন্দরবন রক্ষার শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশী হামলা-নির্যাতন ও সরকারি মিথ্যাচারের প্রতিবাদে, দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল। ঢাকায় মতিউল কাদের চত্বরে (জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে) বিকাল ৪টায়। যোগ দিন।

সূত্রঃফেসবুক